আলোচনা সমালোচনার তুঙ্গেও ব্যবসা সফল মুভি দিন দ্যা ডে

এ বছরের ব্যবসা সফল ছবি দিন দ্য ডে

আলোচনা সমালোচনার  তুঙ্গেও ব্যবসা সফল মুভি দিন দ্যা ডে
দিন দ্যা ডে

এবার ঈদে মুক্তি পেয়েছে তিনটি সিনেমা। এগুলো হলো অনন্ত ও বর্ষা অভিনীত এবং ইরানী নির্মাতা মুস্তফা অতাশ জমজম পরিচালিত বাংলাদেশ-ইরান যৌথ প্রযোজনার সিনেমা ‘দিন : দ্য ডে’, বিদ্যা সিনহা মিম-শরীফুল রাজ-ইয়াশ রোহান অভিনীত রায়হান রাফি পরিচালিত ‘পরান’ ও পূজা চেরী-জিয়াউল রোশান অভিনীত অনন্য মামুন পরিচালিত ‘সাইকো’।

সর্বাধিক ১০৭টি প্রেক্ষাগৃহের ১১৫টি স্ক্রিনে প্রদর্শিত হচ্ছে ‘দিন : দ্য ডে’। সিনেমাটি দ্বিতীয় সপ্তাহে এসেও একই পরিমাণ প্রেক্ষাগৃহ ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছে। অন্যদিকে ১১ প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাওয়া ‘পরান’ দ্বিতীয় সপ্তাহে প্রেক্ষাগৃহ বাড়বে বললেও সেটা চোখে পড়েনি। আর ‘সাইকো’ নিয়ে খুব বেশি আলোচনা নেই মিডিয়া কিংবা দর্শকের মধ্যে।

এবারের ঈদে সিনেমা দেখার চেয়ে সিনেমা নিয়ে বির্তক ও সমালোচনা, কথার পিঠে কথার খোঁচা, কাদা ছোড়াছুড়ি বেশি দেখা গেছে। বিশেষ করে অনন্ত জলিল, বর্ষা ও নির্মাতা রায়হান রাফির মধ্যে মিডিয়ায় বাকবিতণ্ডা হয়েছে। যদিও এর শুরুটা করেছেন রায়হান রাফি। অনন্ত জলিল বেশ আগে বলেছেন তার সিনেমার বাজেট প্রায় ১০০ কোটি টাকা। সেটা নিয়ে টিভি মিডিয়ায় সাক্ষাৎকারে রাফি খোঁচা দিয়েছেন অনন্তকে। সেই থেকে শুরু। এর জের চলছে এখনো। অন্যদিকে অনন্য মামুনও অনন্ত জলিলকে খোঁচা দিয়ে কথা বলেছেন। ফলে অনন্তও মামুনকে ছেড়ে দেননি।

এটাও বলেছেন, মামুনকে পরিচালক বানিয়েছেন তিনি। আর বর্ষা এক সাক্ষাৎকারে নিজেকে মাদক নিয়ে পুলিশের হাতে ধরা পড়া, কিংবা সন্তান গর্ভে নিয়ে লুকিয়ে থাকা নায়িকাদের সঙ্গে তুলনা করতে অপারগতার কথা বলেছেন। এতে খেপে উঠেছেন মাদকের অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া সেই নায়িকা। এগুলো নিয়েই মিডিয়া উত্তাল ছিল বেশ কয়েকদিন।

এদিকে নিজের সিনেমায় ১০০ কোটি বাজেটের বিষয়টি এরই মধ্যে পরিষ্কার করেছেন অনন্ত। তিনি বলেছেন, তার সিনেমাটি ইরানের সঙ্গে যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত এবং এর সর্বাধিক শেয়ার ইরানের। শুধু বাংলাদেশে যেটুকু অংশের শুটিং হয়েছে সেটার খরচই তিনি বহন করেছেন। তাও তার পরিমাণ খুব বেশি নয়। ইরান থেকে বাজেট ও খরচের হিসাব যেটা দেওয়া হয়েছে সেটার কথাই তিনি মিডিয়ায় বলেছেন। এটা নিয়ে সমালোচনার কিছুই দেখছেন না এ নায়ক ও প্রযোজক।