পানি যদি ভূগর্ভে অদৃশ্য হয়ে যায় আল্লাহ ছাড়া আর কে তোমাদের জন্য নতুন করে পানি প্রবাহিত করতে পারবে ? সূরা মুলক

বগুড়ার কাহালুতে বহু পুরোনো একটি পুকুরের তলে সুড়ঙ্গ সৃষ্টি হয়ে সব পানি উধাও হয়ে গেছে!

পানি যদি ভূগর্ভে অদৃশ্য হয়ে যায় আল্লাহ ছাড়া আর কে তোমাদের জন্য নতুন করে পানি প্রবাহিত করতে পারবে ? সূরা মুলক
হে নবী! সত্য অস্বীকারকারীদের জিজ্ঞ্যেস করোঃ- তোমরা ভেবে দেখেছো কি (!) হঠাৎ করে তোমাদের পানি যদি ভূগর্ভে অদৃশ্য হয়ে যায়ঃ- আল্লাহ ছাড়া আর কে তোমাদের জন্য নতুন করে পানি প্রবাহিত করতে পারবে ?
সূরা মুলক(৬৭), আয়াত নংঃ-(৩০)
বগুড়ার কাহালুতে বহু পুরোনো একটি পুকুরের তলে সুড়ঙ্গ সৃষ্টি হয়ে সব পানি উধাও হয়ে গেছে! সেই সঙ্গে উধাও হয়েছে চাষ করা কয়েক লাখ টাকার মাছ! সেই মাছ ও পানি কোথায়অদৃশ্য হয়ে গেছে তা কেউ বলতে পারছেন না!
মহাবিশ্ব সর্বশক্তিমান আল্লাহ তাআলার এক অসাধারণ সৃষ্টি। মহান আল্লাহর সৃষ্টিতত্ত্ব বিশ্লেষণ নিঃসন্দেহে একটি বড় ইবাদত কারণ পবিত্র কোরআনে এই বিষয়ে বিভিন্ন সূরায় একাধিক নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
আল্লাহ পানি হতে সকল প্রানের উন্মেষ ঘটিয়েছেন। ওদের কিছু বুকে ভর দিয়ে চলে, কিছু দুই পায়ে ও কিছু চার পায়ে।তিনি যা চান তাই সৃষ্টি করেনঃ-নিশ্চয়ই আল্লাহ সর্ববিষয়ে সর্বশক্তিমান।
- সূরা আন-নূর(২৪), আয়াত নংঃ-(৪৫)
সুস্পষ্টভাবে সত্যের বর্ণনা দিয়ে আমি আমার বাণীসমূহ নাযিল করেছি। আল্লাহ সাফল্যের সরলপথ তাকেই দেখানঃ- যে পথ খোঁজে। - সূরা আন-নূর(২৪), আয়াত নংঃ-(৪৬)
পবিত্র কোরআনে মানুষকে তার নিজের সৃষ্টি ও আশপাশের সৃষ্টিজগতের প্রতি অনুসন্ধিত্সু দৃষ্টিদানের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। রহস্যময় এই সুবিশাল মহাবিশ্বের অনাবিষ্কৃত অবগুণ্ঠন যতই উন্মোচিত হবেঃ- ততই প্রতিভাত হবে মহান আল্লাহর শ্রেষ্ঠত্ব।
আবু হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত রাসূল (সঃ) বলেনঃ- মানুষকে যে আমল সবচেয়ে বেশি জান্নাতে প্রবেশ করাবে তা হচ্ছেঃ- তাক্বওয়া (আল্লাহ ভিতী) ও এখলাস-আখলাক (শুধুমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য করা)।- তিরমিজিঃ-(২০০৪)
يَا مُقَلِّبَ الْقُلُوبِ ثَبِّتْ قَلْبِى عَلَى دِينِكَ
ইয়া মুক্বল্লিবাল ক্বুলুব, সাব্বিত ক্বলবি আ'লা দীনিক।অর্থঃ- হে অন্তর সমূহের পরিবর্তনকারী! আমার অন্তরকে আপনার দ্বীনের উপর প্রতিষ্ঠিত রাখুন। - তিরমিযি হাদীস নংঃ- (২১৪০)
(كُلُّ مَنْ عَلَيْهَا فَانٍ)
এই পৃথিবীর উপর প্রত্যেকেই বিলীন হয়ে যাবে।
- আর রাহমান(৫৫), আয়াতঃ-(২৬)
বর্তমান এই ভয়ঙ্কর ফেতনার যুগে সঠিক সময়ে সঠিকভাবে সত্য আমল করা আর যুদ্ধ ময়দানে জীবন রক্ষার চাইতে কঠিন! তাই আমলের সাথে শ্বাস-প্রশ্বাসে তাওবাহ ও দরুদপাঠ করে শহীদি মৃত্যু কামনা করিঃ- যেন আমাদেরকে ক্ষমা করে কবুল করা হয়। আমিন।