শিক্ষাবৃত্তি ২০২২ ইমদাদ সিতারা খান

শিক্ষাবৃত্তি ২০২২ ইমদাদ সিতারা খান

ইমদাদ সিতারা খান শিক্ষাবৃত্তি ২০২২ সম্পর্কে। 

সিতারা খান ফাউন্ডেশন এর অর্থায়নে প্রবাসী বাংলাদেশীদের সেবামূলক প্রতিষ্ঠান।

স্পন্দনবি ২০২১ সালে এসএসসি (বিজ্ঞান, মানবিক ও বাণিজ্য) পরীক্ষায় পাশ করে বর্তমানে এইচএসসি (শিক্ষাবর্ষ ২০২১-২০২২) বিজ্ঞান, মানবিক ও বাণিজ্য শাখায় অধ্যয়নরত এবং ২০২০ সালে এইচএসসি পরীক্ষায় পাশ করে বর্তমানে ডিগ্রী পর্যায়ে প্রথম বর্ষ (শিক্ষাবর্ষ ২০২০-২০২১)

– বিএসসি অনার্স: বিএসসি অনার্স (কৃষি ও পশুপালন এর সকল অনুষদ);

-এমবিবিএস;

-বিডিএস;

-বিএসসি টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং,

-বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং,

-বিএ অনার্স,

-বিএসএস অনার্স

এবং বিবিএ এ অধ্যয়নরত

মেধাবী ছাত্র/ ছাত্রীদের কাছ থেকে ইমদাদ – সিতারা খান বৃত্তির জন্য দরখাস্ত আহবান করা যাচ্ছে।

A4 সাইজ সাদা কাগজে আবেদন পত্র/ নির্দিষ্ট ছকে (www.spaandanb.org ওয়েব সাইট থেকে পাওয়া যাবে) পূরণ করে তা চেয়ারম্যান,

ইমদাদ – সিতারা খান বৃত্তি নির্বাচন কমিটি,

বাসা # ০৭/২,

শ্যামলছায়া

# ১, ফ্ল্যাট

# বি / ২, গার্ডেন স্ট্রিট, রিং রোড, শ্যামলী, মোহাম্মদপুর, ঢাকা -১২০৭ এই ঠিকানায়

(কুরিয়ার/ ডাকযোগে/ সরাসরি অফিসে) ১৭ এপ্রিল, ২০২২ ইং তারিখের মধ্যে পৌছাতে হবে।

ইমদাদ সিতারা খান শিক্ষাবৃত্তি ২০২২

ইমদাদ সিতারা খান শিক্ষাবৃত্তি ২০২২ যোগ্যতাঃ 

আবেদনের যোগ্যতা (উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়): এসএসসি / সমমান পরীক্ষায় বিজ্ঞান বিভাগের জন্য ৪ র্থ বিষয় ছাড়া জিপিএ ৫.০০ এবং মানবিক ও বাণিজ্য বিভাগের জন্য ৪র্থ বিষয় ছাড়া জিপিএ ৪.৫০ থাকতে হবে।

দৃষ্টি/ শারীরিক প্রতিবন্ধী (Physically Challenged/ স্বাভাবিক জীবন যাপনে সক্ষম নয় এর ক্ষেত্রে সকল বিভাগে জিপিএ ৪.০০ থাকতে হবে। 

আবেদনের যোগ্যতা (স্নাতক পর্যায়): এসএসসি/ সমমান ও এইচএসসি/ সমমান উভয় পরীক্ষায় ৪র্থ বিষয় ছাড়া বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র – ছাত্রীদের জন্য ন্যূনতম মোট জিপিএ ৯.৫০ এবং অন্যান্য বিভাগের ছাত্র – ছাত্রীদের জন্য ন্যূনতম জিপিএ ৯.২০ থাকতে হবে।

দৃষ্টি/ শারীরিক প্রতিবন্ধী (Physically Challenged/ স্বাভাবিক জীবন যাপনে সক্ষম নয়) এর ক্ষেত্রে উভয় পরীক্ষায় ৪র্থ বিষয় ছাড়া সকল বিভাগে মোট জিপিএ ৮.০০ থাকতে হবে। 

ইমদাদ সিতারা খান শিক্ষাবৃত্তি ২০২২  এর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র।

১. বর্তমানে অধ্যয়নরত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নের প্রমাণপত্র/ প্রত্যয়ন পত্রের ফটোকপি (প্রতিষ্ঠানের প্রধান/ বিভাগীয় প্রধান/ হল সুপার/ প্রভোষ্ট কর্তৃক সত্যায়িত 

২. পরীক্ষা পাশের (সকল) মার্কশিট/ ট্রান্সক্রিপ্ট এর ফটোকপি (অধ্যয়নরত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্তৃক সত্যায়িত)

৩. সাম্প্রতিক তোলা ২ কপি পাসপোর্ট সাইজ ছবি (অধ্যয়নরত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্তৃক সত্যায়িত)

৪. আবেদনকারী কেন নিজেকে এই বৃত্তির যোগ্য মনে করেন ৩০০-৪০০ শব্দে তার বর্ণনা (স্বহস্তে বাংলায় লিখিত)।

৫. পাঠ্যক্রম বহির্ভূত কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত থাকলে প্রমাণপত্র/ প্রত্যয়নপত্র ফটোকপি (অধ্যয়নরত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্তৃক সত্যায়িত) 

৬. প্রার্থীর প্রদানকৃত তথ্যে কোন রকম অসঙ্গতি অথবা করো সাথে মিল/ নকল পাওয়া গেলে আবেদনটি বাতিল করা হবে। 

৭. শুধুমাত্র এমবিবিএস এবং বিডিএস এর ক্ষেত্রে ২০১৯ সালে পাশ করা ছাত্র – ছাত্রীরাও আবেদন করতে পারবে।

৮. শারীরিক প্রতিবন্ধীদের ক্ষেত্রে সমাজসেবা অধিদপ্তর/ প্রতিষ্ঠান কর্তৃক সনদ বা পরিচয়পত্র দাখিল করতে হবে।

বিস্তারিত তথ্য www.spaandanb.org ওয়েব সাইট,

[IMDAD-SITARA KHAN FOUNDATION SCHOLARSHIP ফেসবুক পেজ]

অথবা স্পন্দনবি বাংলাদেশ অফিস, বাসা # ৭/ ২, শ্যামলছায়া # ১, ফ্ল্যাট # বি/ ২, গার্ডেন স্ট্রিট, রিং রোড, শ্যামলী, মোহাম্মদপুর, ঢাকা -১২০৭ অফিসে পাওয়া যাবে

অথবা ০২-৪৮১১৪৪৯৯, ০১৭১৩-০৩৬৩৬০, ০১৭৭৩-৬১০০০৯ নম্বরে যোগাযোগ করে বৃত্তি সংক্রান্ত তথ্য পাওয়া যাবে। 

এ পোস্টের সাথে যুক্ত ফাইলে দুইটি ফাইল যুক্ত করা রয়েছে।

আবেদনপত্র ফাইল

১. প্রথম পৃষ্ঠায় রয়েছে বৃত্তির বিজ্ঞপ্তিসহ কি কি কাগজপত্র যুক্ত করতে হবে তার বর্ণনা।

২. দ্বিতীয় পৃষ্ঠায় রয়েছে এইচএসসি পর্যায়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের আবেদন পত্র।

কিছু গুরুত্বপুর্ণ বিষয়ে বলে রাখা ভালঃ

১. ’বরাবর, চেয়ারম্যান ………………………………….. আপনার অনুগত ছাত্র’ এমন করে আবেদন লিখার প্রয়োজন নেই। সংযুক্ত ফাইল থেকে আপনার আবেদনটি প্রিন্ট নিয়ে নিজ হাতে পুরন করুন। এটাই আপনার বৃত্তির আবেদনপত্র।

২. ফরমে ১-১৫ টি বিষয়ে সঠিক তথ্য প্রদান করুন। কোনটিতে তথ্য দেয়ার কিছু না থাকলে ’প্রযোজ্য নয়’ লিখুন।

৩. অন্য কোন প্রতিষ্ঠান থেকে বৃত্তি পেয়েছেন কিনা তারও সঠিক তথ্য দিবেন। বোর্ড বৃত্তি পেলে তারও তথ্য দিতে ভুলবেন না। কারণ ইমদাদ-সিতারা খান বৃত্তি অর্জনের ক্ষেত্রে বোর্ড বৃত্তি পাওয়াটা প্লাসপয়েন্ট হিসেবে কাজ করবে।

আপনি যদি কোন প্রতিষ্ঠান থেকে মাসিক ১০০০ টাকার অধিক হারে বৃত্তির জন্য মনোনীত হন সেক্ষেত্রে ইমদাদ-সিতারা খান বৃত্তির জন্য আবেদন না করাই উত্তম।

ইমদাদ সিতারা খান শিক্ষাবৃত্তি ২০২২

৪. অনার্স পর্যায়ে শুধুমাত্র সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এবং মেডিকাল কলেজে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীগণ এ বৃত্তির আবেদনের জন্য যোগ্য। অনার্স পর্যায়ে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় এবং মেডিকাল কলেজে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের আবেদন না করতে অনুরোধ করা হলো।

এইচএসসি পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের জন্য এমন কোন নিয়ম প্রযোজ্য নয়। সরকারী এবং বেসরকারি যেকোন প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নরত এইচএসসি পর্যায়ের শিক্ষার্থীগণ আবেদন করতে পারবেন।

৫. আবেদনের শেষ তারিখ এপ্রিল ১৭, ২০২২। এখনও পুরো এক মাস সময় আছে বলে শেষ সময়ের অপেক্ষায় থাকবেন না।

৬. ইমদাদ-সিতারা খান বৃত্তির আবেদন খুবই কঠিন ব্যাপার মনে হতে পারে। মোটেও কঠিন নয়। আবেদনের যোগ্য হলে শুরু করুন আজই শুরু করুন। খুবই সহজ মনে হবে।

[ বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ লিখিত বর্ণনাতে অন্যান্য তথ্যের সাথে ব্যয়ের খাতগুলো উল্লেখ করতে হবে এবং কোন কোন আয়ের উৎস থেকে সেগুলো পূরণ করা হয় তার উল্লেখ থাকতে হবে । ]

বৃত্তি, শিক্ষা, বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, চাকরী, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সহ সকল খবর সবার আগে পেতে Janaobd.com সাইটি নিয়মিত ভিজিট করুন।